মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১   কার্তিক ৩ ১৪২৮

আগামী শনিবার কোভিড হাসপাতালে শুরু হচ্ছে সাধারণ রোগের চিকিৎসা

যুগের চিন্তা অনলাইন

প্রকাশিত: ৬ অক্টোবর ২০২১  

আগামী শনিবার নারায়ণগঞ্জ কোভিড-১৯ হাসপাতালে শুরু হতে যাচ্ছে সাধারণ রোগের চিকিৎসা। প্রথমে ছোট পরিষরে খুলে দেয়া হবে বর্হিবিভাগ। আপাতত হাসপাতালটিতে কোন সাধারণ রোগী ভর্তি দেয়া হবে না। বন্ধ থাকবে অপারেশন থিয়েটারও। এবিষয় নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের চিকিৎসা তত্ত্বাবধায় আবুল বাসার।

 

তিনি জানান, এখনো কোভিড রোগী ভর্তি আছে। তাই সাধারণ রোগীর ভর্তির ব্যবস্থা করা যাচ্ছে না সময়ই বলে দিবে পুর্ণাঙ্গভাবে কখন এই হাসপাতালটি সাধারণ রোগীর চিকিৎসা দিবে। কাটা ছেঁড়া রোগী এখনই এই হাসপাতালে চিকিৎসা পাবে না। কারণ যে কোন সময় কোরানা রোগী জরুরী বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসতে পারে। সেই কথা মাথায় রেখে এখনই জরুরী বিভাগে কাটাঁছেড়া রোগীর চিকিৎসা হচ্ছে না। তবে হাসপাতালটিতে পাশাপাশি করোনা রোগীসহ করোনা টেস্ট ও টিকা কার্যক্রম চালু থাকবে।    



জানা গেছে, ১০ বেডের আইসিইউ শয্যার মধ্যে ৮ বেডই রোগী শূন্য। অন্যদিকে সাধারণ শয্যায় তেমন একটা রোগী নেই। একশত দশ শয্যার মধ্যে ৯১ শয্যা খালি। রোগী না থাকায় করোনা আইসোলেসন ১৯নং পুরুষ ওয়ার্ড ও ১৮নং মহিলা ওয়ার্ড বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গতকাল কোভিড হাসপাতাল ঘুরে এই তথ্য পাওয়া গেছে। জরুরী বিভাগ আর রোগী ভর্তি দেয়া বন্ধ থাকলেও বর্হিবিভাগে মোটামোটি সব ধরনের চিকিৎসা দেয়া হবে এমনটাই কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।    



এদিকে গত দেড় বৎসরের বেশী হাসপাতালটিতে স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থায় করোনাভাইরাস বিষয়টিকে বিশেষ প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। তাই হাসপাতালটিতে সাধারণ রোগের চিকিৎসা বন্ধ করে দেয়া হয়। তবে বর্তমানে করোনা সক্রামণ অনেকটাই কমে যাওয়ায় সাধারণ রোগের চিকিৎসা শুরু এখন সময়ের ব্যাপার। এরপূর্বেও করোনার সক্রমণ কমে গিয়েছিল তখন এই হাসপাতালটির জরুরী বিভাগ ও ছোট পরিষরে বর্হিবিভাগ খুলে দিয়ে ছিল কর্তৃপক্ষ।

 


তবে আগামি শনিবার থেকে মেডিসিন, সার্জারী, গাইনী, চক্ষু, শিশু, নাক কান গলাসহ সব ধরনের চিকিৎসা পাবে আগত রোগীগণ। সেই লক্ষে বর্হিবিভাগের চিকিৎসকদের রুম সহ আনাচে-কানাচে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নর কাজ করা হচ্ছে হাসপাতালটিতে। যাতে কোন সক্রমণ না থাকে সেই জন্য জীবানুনাশক দিয়ে ঘসামাজার কাজ চলছে।



এদিকে অনেক ভুক্তভোগি জানান, করোনা আক্রান্ত নন কিন্তু অন্য গুরুতর রোগ রয়েছে এমন রোগীরা জরুরী চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। আমরা কঠিন এক সময় পার করে চলছি। করোনা ভাইরাসের চেয়ে বেশী অন্যান্য রোগী। যারা চিকিৎসা সেবা নিতে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতাল ঘুরে বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে। এদের কথাও মাথায় রাখতে হবে। আলমাস নামের একজন জানান, তার বাবা গতকাল অসুস্থ হয়ে পড়ায় এই হাসপাতালে নিয়ে আসেন। কিন্তু তার জানা ছিলোনা এখানে সাধারন রোগের চিকিৎসা হয় না। তাই ভুক্তভোগী তার দুর্দশার কথা উল্লেখ করে বলেন অসুস্থ বাবাকে নিয়ে উদ্বিগ্ন।
 

এই বিভাগের আরো খবর