রোববার   ০৪ জুন ২০২৩   জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪৩০

আবারও বেড়েছে এলপিজি গ্যাসের দাম

হাসিবা নিঝুম

প্রকাশিত: ৬ মে ২০২৩  

 

# ১২ কেজি সিলিন্ডারে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ টাকা করে বেড়েছে

 

 

সাধারণত শহরের বাসাবাড়িতে যাদের গ্যাসে সংযোগ নেই তারা এলপিজি গ্যাস ব্যবহার করে। এছাড়াও গ্রাম পর্যায়ের অনেকেই এখন এলজিপির ওপর নিভর্রশীল। বড় বড় হোটেল রেস্তোরাতেও রান্নার জন্য ব্যাবহার করা হয় এলপিজি। গতকাল শহরের কিছু এলপিজির দোকান ঘুরে দেখা যায় ১২ কেজি সিলিন্ডারে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ টাকা করে বেড়েছে।

 

দেওভোগ গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবসায়ী রাসেল এর সাথে কথা বলে জানা যায়, গত সপ্তাহে তারা ফাইবার সিলিন্ডার ১২৪০ টাকা করে বিক্রি করেছেন আর এখন ১৩০০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। এই কয়দিনে প্রায় ৪০ থেকে ৬০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে একজন ক্রেতার সাথে কথা বললে তিনি যুগের চিন্তাকে জানায়, গ্যাসের যেই সংকট সিলিন্ডার ছাড়া কোনো উপায় নাই। রাতে ১২ টার পর গ্যাস আসে আবার ভোর ৫ টায় চলে যায়।

 

শুধু তাই নয় টিম টিম গ্যাসে রান্না করা সম্ভব হয় না। যে পরিমানে গ্যাস থাকে তাতে করে কিছুই করা যায় না। তাই বাধ্য হয়ে এলপিজি গ্যাসের ওপর ভরসা করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। কিন্ত দিন দিন যদি এলপিজি গ্যাসের দাম এভাবে বেড়েই চলে তাহলে বিপাকে পড়তে হবে আমাদের। বাধ্য হয়ে চওড়া দামে এলপিজি কিনতে হবে আমাদের।

 

পুনরায় এ বিষয়ে সাইফুল নামের এক সিলিন্ডার ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা যায়, রমজান মাসে গ্যাস সিলিন্ডারের দাম কম ছিলো কিন্ত ঈদেও পর থেকে ধীরে ধীরে দাম বাড়তে থাকে। তবে মাত্র দু একদিনে ৫০ থেকে ৬০ টাকা বেড়েছে। প্রতি ১২ কেজিতে ৫৭ টাকার মতো বেশি দাম নিয়ে পাইকারি দামে কিনতে হচ্ছে আমাদের।

 

শুধু তাই নয় পাইকারিতে দাম বাড়লে আমাদেরও খুচরা ব্যবসায়ীদেরও দাম বাড়াতে হয়। তবে আগে এলপিজি গ্যাসের চাহিদা তেমন ছিলো না। এখন ঠিকমতো গ্যাস না থাকায় চাহিদা বেড়েছে এলপিজি গ্যাসের। এ ব্যাপারে সুমন নামের এক ক্রেতা যুগের চিন্তাকে জানায়, এলপিজি গ্যাস একেক দোকানে একেক রকম দামে বিক্রি করা হয়। কেউ চওড়া দামে বিক্রি করেন আবার কেউ কম লাভে বিক্রি করেন। তবে সরকার নির্ধারিত দামে কেউ বিক্রি করছেন না বলে অভিযোগ করেন তিনি।
এস.এ/জেসি

এই বিভাগের আরো খবর