মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১   কার্তিক ৩ ১৪২৮

আলীরটেকের উন্নয়নের স্বার্থে জাকিরকে চান এলাকাবাসী

যুগের চিন্তা অনলাইন

প্রকাশিত: ১২ অক্টোবর ২০২১  

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাচনের তফসিল ঘোষনার পর থেকে ইউনিয়ন গুলোতে প্রচার প্রচারনা জমে উঠেছে। চেয়ারম্যান প্রার্থীরা চায়ের দোকান থেকে শুরু করে ওলিতে গলিতে নির্বাচনি প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন চেয়ারম্যান মেম্বার প্রার্থীরা সভা করে নিজেদের অবস্থান তৈরী করছেন। সেই সাথে মাঠে ময়দানে হাটে বাজারে গিয়ে ভোটারদের মনজয়ের চেষ্টা করছে।

 

তারই ধারাবাহিকাতায় আলীরটেক ইউনিয়নের সাবেক সফল চেয়ারম্যান জাকির হোসেন এবার নির্বাচন করার ঘোষনা দিয়েছেন। ওই ইউনিয়নের সর্বস্তরের মানুষের দাবির প্রেক্ষিতে তিনি নির্বাচনে নামতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানান এলাকাবাসি। স্থানীয়দের মতে ২০১১ সনের নির্বাচনে জাকির হোসেন জয়ী হয়ে ওই ইউনিয়নের পুরোদৃশ্য পাল্টে দিয়েছে। এই উন্নয়নের স্বার্থে আলীরটেকবাসি তাকে এবারও চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনের দাবি তুলেন। তাদের এই দাবীর রক্ষার্থে তিনি নির্বাচনের মাঠে নেমেছেন।

 

আলীরটেকবাসি জানান, আলীরটেকের উন্নয়নের রুপকার হিসেবে সকলে জাকির হোসেনকে চিনেন। তিনি ৫ বছর চেয়ারম্যান হয়ে এই এলাকার রাস্তাঘাটের যে উন্নয়ন করেছে তা এর আগে কেউ করতে পারে নাই। তার সাথে সর্বস্তরের মানুষ কথা বলতে পারে। একই সাথে আলীরটেকের অসহায় মানুষের পাশে থেকে সর্বদা সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন তিনি। তিনি প্রতিটা ইউনিয়নের নারী পুরুষের মনের জায়গায় স্থান করে নিয়েছে। তিনি আলীরটেক ইউনিয়নকে নিজের বাড়ী মনে করে উন্নয়ন করেছে। এবার চেয়ারম্যান হতে পারলে তিনি এই এলাকার গ্রাম গুলোকে মডেল হিসেবে তৈরী করবেন। ২০১১ সনের নির্বাচনে মতির সাথে বিপুল ভোটে জয়ী হন জাকির হোসেন। তিনি ২০১১ থেকে ২০১৬ সন পর্যন্ত রাস্তাঘাটের যে পরিমান উন্নয়ন করেছে গত বিশ বছরেও তা হয় নাই।

 

এদিকে এ বছরের শুরুর দিকে কয়েক মাস আগে এই সাবেক চেয়ারম্যানের প্রশংসা করে এক সভায় এমপি সেলিম ওসমান বলেন, জাকির ভাই আমার কাছে কিছু চায় নাই। শুধু আলীরটেক বাসীর জন্য একটা হাসপাতাল চেয়েছিলেন। আমি যখন ২০১৪ সনে ৫ আসনে উপ নির্বাচন করি তখন জাকির ভাইকে আলীরটেকে পোষ্টার সহ বিভিন্ন খরচের জন্য ১০ লাখ টাকা দিয়েছিলাম। নির্বাচন শেষে তিনি একটা মিষ্টির বাক্স নিয়ে আসে। তখন ভেবেছিলাম আমার জন্য মিষ্টি নিয়ে আসছে। কিন্তু বাক্স্র খুলে দেখি তিনি আমার দেয়া ১০ লাখ টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা ফেরত দিতে এসেছে। তখনই দেখিছি তার মত সৎ লোক আমার অন্য কনো ইউনিয়নে পাই নাই। আমি মতিকে অনুরোধ করবো তার সাথে মিলে ওই খানে একটি সুন্দর হাসপাতাল করার জন্য। কোন রকম ঝগরা করবেন না। আমি আপনাদের মাঝে কোন ধরনের রেষারেশি দেখতে চাই না।

 

এদিকে আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা জানান সাবেক চেয়ারম্যান জাকির হোসেন নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের কাছের লোক। এই সাংসদ তাকে আলীরটেকের চেয়ারম্যান হিসেবে পছন্দও করেন বলে জানান একাধিক ব্যক্তি। ওই ইউনিয়নের ডিক্রিরচরের একটি ওয়াজ মাহফিলে গিয়ে শামীম ওসমান বলেছেন, এই করোনার মহামারীর মাঝে নারায়ণগঞ্জে জাকির ভাই না জানিয়ে হাজার হাজার মানুষকে সহযোগিতা করেছে। তার মত খুব কম লোকই আছে জনপ্রতিনিধি না থেকেও মহামারীর মাঝে মানুষের পাশে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন।

 

তিনি আরও বলেন, আলীরটেকে সুষ্ঠ নির্বাচন হবে। কিন্তু নির্বাচন নিয়ে কোন ধরনের মারামারি করা যাবেনা। ওই সভায় আব্দুস সালাম ও মো. হানিফ নামে দুই ব্যক্তি শামীম ওসমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন,আমরা আলীরটেকে সুষ্ঠ নির্বাচন চাই। এখানকার মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে চায়। আমরা আমাদের ভোট পছন্দের মানুষকে দিতে চাই। তখন প্রতক্ষদর্শীরা এই সাংসদের কাছে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থা করে দেয়ার দাবী জানান। তাদের এই দাবীর প্রেক্ষিতে এমপি শামীম ওসমান সুষ্ঠ নির্বাচনের আশ্বাস দেন। আলীরটেক বাসি তার ওই কথা এখন বাস্তবায়ন দেখতে চান। তার দেয়া কথা যেন বাস্তবে রুপান্তরিত হয়। রাজনৈতিক মহলের মতে আলীরটেক সুষ্ঠ এবং নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ২০১১ সনের মত এবার মতির গতি থাকবে না। সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে আছে এলাকাবাসি।

 

আলীরটেক ইউনিয়নের সাবেক সফল চেয়ারম্যান জাকির হোসেন বলেন, আমি আলীরটেক ইউনিয়নের মানুষের দাবীর প্রেক্ষিতে নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছি এবং নির্বাচনের মাঠে থেকে শেষ পর্যন্ত ভোটের লড়াই চালিয়ে যাবো। এই ইউনিয়নে যদি সুষ্ঠ নির্বাচনের ব্যবস্থা হয় তাহলে ২০১১ সনের নির্বাচনের মত এবারও বিপুল ভোটে আমি জয়ী হবো। এলাকাবাসি আমাকে চায়। আশা করি আল্লাহর রহমতে সকলের দোয়ায় জয়ী হয়ে মানুষের সেবা করতে পারবো।  

 

 

এই বিভাগের আরো খবর