রোববার   ২১ জুলাই ২০২৪   শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

কায়সার হাসনাতের পাশে শামীম ওসমান

যুগের চিন্তা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

 

আগামী জাতীয় দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন ঘিরে আওয়ামী লীগ বিএনপি পরোদমে মাঠে রয়েছে। তবে জাতীয় পার্টি কোন আন্দোলন সংগ্রামে না থেকেও সুযোগ বুঝে নির্বাচনে মনোনয়ন ভাগিয়ে এমপি নির্বাচিত হয়ে যান। এবারও নারায়ণগঞ্জ জাতীয় পার্টি একই কৌশলে রয়েছে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বোদ্ধ মহল। তবে ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে ছাড় দিতে নারাজ।

 

কেননা ২০১৮ সনের নির্বাচনের পর থেকে নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে জোরালো ভাবে নৌকার প্রার্থী দেয়ার দাবী জানিয়ে আসছেন স্থানীয় নেতা কর্মীরা। এমনকি জাতীয় পার্টির এমপিদের নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। নারায়ণগঞ্জ-৩ এবং নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনটি জাতীয় পার্টির দখলে রয়েছে। এখানকার আওয়ামী লীগের নেতারা অবহেলিত রয়েছে বলে তাদের অভিযোগ। দীর্ঘ দিন আওয়ামী লীগ ক্ষমতা থাকলেও ক্ষমতার স্বাদ এই আসনের নেতা কর্মীরা নিতে পারে নাই বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ক্ষমতাসীন দলের নেতারা।

 

এদিকে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনটি টানা দুইবার জাতীয় পার্টির দখলে রয়েছে। আওয়ামী লীগের মহাজোটের শরীক দল জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকা মনোনীত হয়ে ২০১৪ সনে এখান থেকে নির্বাচতি হয়েছেন। যা এখনো পর্যন্ত রয়েছেন। কিন্তু আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে ছাড় দিতে চান না স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা। নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে আগামী নির্বাচনের জন্য আওয়ামী লীগ থেকে নৌকার মনোয়ন প্রত্যাশী হিসেবে একাধিক প্রার্থী মাঠে নেমে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

এখানে জাতীয় পার্টিকে ঠেকাতে আট ঘাট বেধে মাঠে নেমেছেন। আর এজন্য এখানে নৌকার প্রার্থী দেয়ার জন্য জোরালো ভাবে তারা তাদের দাবী জানিয়ে আসছেন। সোনারগাঁয়ে আওয়ামী লীগের নেতাদের অক্যের অভাবে মহাজোট থেকে জাতীয় পার্টিকে দেওয়াই ভালো মনে করেন দলী হাই কমান্ড।

 

জানা যায়, ২০০৮ সনে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনীত হয়ে নৌকা নিয়ে আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসানত সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। তখন তিনি সোনারগাঁ এবং সিদ্ধিরগঞ্জ মিলিয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সিদ্ধিরগঞ্জ তার আসনে চলে যাওয়া তখন শামীম ওসমান মনক্ষুন্ন হন বলে গুঞ্জন রয়েছে। ২০১৪ সনের নির্বাচনে এসে এই আসনটি আওয়ামী লীগ থেকে জাতীয় পার্টির দখলে চলে যায়। যা এখনো উদ্ধার হয় নাই। তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে এখানে নৌকার প্রার্থী পেতে মরিয়া হয়ে দাবী জানিয়ে আসছেন।

 

দলীয়সূত্র মতে, ২০২২ সনের ৩ সেপ্টেম্বর সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে গিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, আমরা নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনে নৌকার প্রার্থী চাই। শহরের প্রভাবশালী এমপির আশীবার্দে কোথাকার এক লোককে ধরে এনে সোনারগাঁয়ের এমপি বানিয়েছেন। যার কোন নাম নিশানা ছিলনা। আমরা এখানে নৌকার প্রার্থী দেয়ার দাবী জানাই। জাতীয় পার্টির উপর আর থাকতে চাই না।

 

অপরদিকে আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান সমাবেশের ডাক দিয়েছেন। এই সমাবেশের মাধ্যমে তিনি বিএনপির আন্দোলন ঠেকানোর জন্য নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগই যথেষ্ট হিসেবে শক্তির জানান দিতে চান। এই সমাবেশকে বাস্তবায়নের জন্য সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগ প্রস্তুতি সভা করেন। এই প্রস্তুতি সভায় সাংসদ শামীম ওসমান গিয়ে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবে সংসদ সদস্য কায়সার হাসনাত এমপি শামীম ওসমানের ডান পাশে বসা ছিলেন।

 

তাছাড়া দীর্ঘ দিন পর সোনারগাঁয়ের মাটিতে পা রাখেন সাংসদ শামীম ওসমান। ওই সভায় সাংসদ শামীম ওসমান বলেন, আমরা যারা ৭৫ এর পরে রাজনীতিতে এসেছি তারা শেখ হাসিনাকে মায়ের দৃষ্টিতে দেখি। ওরা আমাদের মাকে নিয়ে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল করবে, এটাতো আমরা মেনে নিব না। এমন কর্মকাণ্ড আমরা মেনে নিতে পারি না। তাই মনে হয়েছে এবার ঘণ্টা বাজানোর সময় এসেছে।

 

কারণ দেশের সবগুলো আন্দোলন শুরু হয়েছে এ নারায়ণগঞ্জ থেকে। তাই নারায়ণগঞ্জেই আমাদের ঘণ্টা বাজাতে হবে। আগামী ১৬ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগর সমাবেশ হবে। সেদিন নারায়ণগঞ্জের মানুষ দেখিয়ে দেবো নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের ঘাঁটি ছিল আছে এবং থাকবে। আপনারা ১৬ তারিখ দেখিয়ে দেবেন, আমরা ঘন্টা বাজিয়ে এমন আওয়াজ তুলব, যা সারাদেশে বেজে উঠবে। আর বলে রাখি আগামী নির্বাচনে শেখ হাসিনাই হবেন সরকার প্রধান।

 

১৬ সেপ্টেম্বরের সমাবেশকে সাফল্য করার জন্য সোনারগায়ের প্রস্তুতি সভায় নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কায়সার হাসনাত বলেন, আমার পিতৃতুল্য স্থানে যাকে বসিয়েছি তিনি হলেন আমাদের দলের এমপি শামীম ওসমান। তার নাম শুনে সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা আজকে ছুটে এসেছে।

 

১৬ সেপ্টেম্বর কি হবে আমরা সেদিনই দেখাবো। বিএনপির আন্দোলন কিভাবে ঠেকাতে হয় আমরা জানি। আজকে আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে স্বর্ণযুগ পার করছে। কিন্তু ক্ষমতার স্বাদ থেকে আমাদের নেতাকর্মীরা বঞ্চিত। শামীম ওসমানের নেতৃত্বে ঐক্যের ডাক দিয়েছি। আগামীতে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে যাবো।

 

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা ওসমান পরিবারের আশীবার্দে এমপি হয়েছেন। যা মেয়রর বক্তব্যে ফুটে উঠেছে। কায়সার হাসনাতের পাশে সাংসদ শামীম ওসমানকে বসা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে রাজনৈতিক বোদ্ধ মহলে। আগামী নির্বাচনের আগে সোনারগাঁয়ে প্রভাবশালী নেতার অবস্থান নিয়ে না প্রশ্ন উঠেছে। কেউ কেউ আগামী নির্বাচনে কি তাহলে শামীম ওসমান কায়সার হাসনাতকে সমর্থন দিচ্ছেন।

 

নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দেয়ার ইঙ্গিত পেয়েছেন। কেননা প্রস্তুতি সভায় সাংসদ শামীম ওসমানের ব্যাপক প্রশংসা করেন সাবেক এমপি কায়সার হাসনাত। তাকে নিয়ে তিনি সোনারগাঁয়ের নেতা কর্মীদের উজ্জীবিত করছেন। তার সেই শক্তির জানান ১৬ তারিখের সমাবেশের মাধ্যমে দিতে চান। এস.এ/জেসি 

এই বিভাগের আরো খবর