শুক্রবার   ২১ জানুয়ারি ২০২২   মাঘ ৮ ১৪২৮

ঘুড়ি মার্কায় ভোট দিয়ে খুনির ভাইকে প্রত্যাখান করুন : নানক

যুগের চিন্তা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০২২  

গতকাল সন্ধ্যায়  নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২নং ওয়ার্ড এলাকার খানপুর বৌ বাজারে নির্বাচনী পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন

গতকাল সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২নং ওয়ার্ড এলাকার খানপুর বৌ বাজারে নির্বাচনী পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন

# তৈমূর সাহেব বুঝতে পারবেন কত ধানে কত চাল, আওয়ামীলীগ কারে কয়


বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক খানপুরবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, এই খানপুরে বারবার আসবো। একটি ভোট চাই ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর জন্য, আরেকটি ভোট চাই ১৯৭৫ সালের পনেরই আগষ্টে যে খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে সহপরিবারে হত্যা করেছে । যারা ছোট্ট শিশু রাসেলকে হত্যা করেছে দ্বিধাবোধ করে নাই।

 

কারাগারের অভ্যন্তরে জাতীয় চার নেতাকে রাতের অন্ধকারে নির্মূলভাবে হত্যা করেছে সেই হত্যাকারীর ভাই এখান থেকে কমিশনার নির্বাচন করছে শুনে  আমরা অভাগ হয়ে গেছি।  আমরা অবাগ হয়েছি এবং হতবাক হয়ে গেছি। যে এই এলাকার মানুষ কি বিবেক শুন্য। না এলাকার মানুষ বিবেক শুন্য না আমরাই বিবেক শুন্য। আমার পাশে যেই প্রাথী দাঁড়িয়ে রয়েছেন যুবলীগ নেতা ঘুড়ি মার্কায় সেলিক খানকে ভোট দিয়ে ১৬ তারিখ ওই খুনির ভাইকে ঘৃণাভরে প্রত্যাখান করুন। আমরা সবাই রাজি আছেন তো।

 

আপনারা আপনাদের পবিত্র আমানত খেয়ানত করবেন না। আমি বিশ্বাস করি আপনাকে সেলিম খানকে ঘুড়ি মাকায় ভোট দিয়ে এলাকার কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন। ঘড়ি মার্কায় ভোট দিয়ে খুনির ভাইকে প্রত্যাখান করুন। নারায়ণগঞ্জবাসীকে ধন্যবাদ জানাই অত্যন্ত আনন্দ ও উৎসব মুখর আমেজের মধ্যদিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন হচ্ছে। আর এই উৎসব মুখর আমেজের নির্বাচনকে কেউ যদি ছন্দ পরিবর্তন করতে চায় তৈমুর সাহেব নির্বাচনী পরিবেশ কোনো ভাবে বিক্রিত করতে আমরা দিবো না, দিবো না ইনশাল্লাহ।

 

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১২নং ওয়ার্ড এলাকার খানপুর বৌ বাজারে নির্বাচনী পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এস কথা গুলো বলেন। জাহাঙ্গীর কবির নানক তৈমুর আলকে উদ্দ্যেশে করে বলেছেন, এই নির্বাচনকে নিয়ে আমাদের দলের মধ্যে একটি ধুম্রজাল হয়েছিলো। সেই ধুম্রজাল নেই। সেই ধুম্রজাল কেটে গিয়েছে। আর কেটে হাওয়ার সাথে সাথে ওই যে না বিএনপি না খেলাফত কি যে ওনি । ওনি কখনো কয় বিএনপি প্রাথী, কখনো কয় জনগণের প্রার্থী।

 

ওনি বলছে কেল্লা ফতে। ওনি বুঝেছেন পায়ের তলে মাটি নাই। তার পায়ের তলে মাটি নাই বলেই এখন নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার জন্যই রাস্তা তৈরি করছেন। বিভিন্ন ক্ষেত্র তৈরি করছেন। দয়া করে যাইয়েন না। ১৬ তারিখ নির্বাচনে ফলাফলটা অত্যন্ত দেইখা তারপর যান। তারপর বুঝতে পারবেন কত ধানে কত চাল। আওয়ামীলীগ কারো কয়। দিন শেষে আওয়ামীলীগ ঐক্যবন্ধ থাকে। দিন শেষে আওয়ামীলীগ নৌকার বিজয়ী দেখে। দিন শেষে আওয়ামীলীগ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবন্ধ থাকে সেইটা দেখতে পারছেন।


জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আমি খাপনপুরবাসীকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একটি ম্যাসেজ পৌছাতে এসেছি। আমাদের আসার একটি বিশেষ কারণ রয়েছে। আগামী ১৬ জানুয়ারি আপনারা ভাগ্য নির্ধারণ করবেন। এই নারায়ণগঞ্জ শান্তিময় নারায়ণগঞ্জ হবে না অশান্তির নারায়ণগঞ্জ হবে। উন্নয়নের নারায়ণগঞ্জ হবে না অবনতির নারায়ণগঞ্জ হবে।

 

নারায়ণগঞ্জের সমাজ ঠিক থাকবে না বেঠিক থাকবে সেই সিদ্ধান্ত আপনাদের নিতে হবে। আমরা এসেছি আবার বক্তব্যে দিয়ে চলে যাবো। চিন্তা তো আপনাদের কাছে। পবিত্র আমানত ভোটের মালিক কিন্তু আপনারা। যিনি নৌকা মার্কায় নির্বাচন করছে তাকে আপনারা সবাই চিনেন। এর আগে তিনি দুই বার পৌরসভার চেয়ারম্যান ও দুই বার সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র আপনাদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন।


তিনি আরও বলেন, গত নির্বাচনে ৮৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়ে জননেত্রীকে উপহার দিয়েছিলেন। এবার মাননীয় নেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন আমি আইভীকে দিয়েছিলাম আইভীতে দিয়ে উন্নয়ন করিয়াছি যাতে আইভীে আবারও নির্বাচিক করোও তাহলে সকল উন্নয়নের দায়িত্ব আমার নিলাম আমিই দেখবো। হাজার হাজার মানুষ আইভীকে দেখে বলছেন আপনি কেনো ভোট চেয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আপনাকে ভোট দেওয়ার জন্য আমরা মানুষিকভাবে প্রস্তুত রয়েছি। আপনি চিন্তা করবেন না আমরা জনগন আপনার সাথে রয়েছি। আমরা আপনার সাথে আছি এবং ছিলাম থাকবো।


১২নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন টুল’র সভাপতিত্বে ও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের সদস্য সামসুজ্জামান ভাষানীর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসিবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রহমান, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবদুল হাই, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ বাদল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা প্রমুখ।

এই বিভাগের আরো খবর