শুক্রবার   ২১ জানুয়ারি ২০২২   মাঘ ৮ ১৪২৮

তৈমূর আলম খন্দকার তো গডফাদারের বাইরে নয় : আইভী

যুগের চিন্তা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০২২  

আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা.সেলিনা হায়াৎ আইভী গতকাল সকালে বন্দর ২১নং ওয়ার্ড ছালে নগর এলাকায় ও বিকেলে ২০নং ওয়ার্ড সোনাকান্দা কিল্লা এলাকা সহ বিভিন্ন গলিতে নৌকা প্রতীকের ব্যাপক গণসংযোগ করেন। ছবি তুলেছেন মেহেদ

আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা.সেলিনা হায়াৎ আইভী গতকাল সকালে বন্দর ২১নং ওয়ার্ড ছালে নগর এলাকায় ও বিকেলে ২০নং ওয়ার্ড সোনাকান্দা কিল্লা এলাকা সহ বিভিন্ন গলিতে নৌকা প্রতীকের ব্যাপক গণসংযোগ করেন। ছবি তুলেছেন মেহেদ

#   তৈমূর আলম খন্দকারকে ত্বকী হত্যা নিয়ে কোথাও সমাবেশ করতে দেখা যায়নি
 

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, তৈমূর আলম খন্দকারের কর্মকান্ডে ফুটে উঠেছে উনি শামীম ওসমানের ক্যান্ডিডেট। নিজেকে প্রটেক্ট করার জন্য যদি আমাকে গডমাদার বলেন পক্ষান্তরে উনি উনার সন্তানকেই বলছেন। আমি কিন্তু উনাকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করিনি। আমি চাইলে অনেক কিছু বলতে পারি উনার নামে কিন্তু বলবো না। উনাকে সম্মান করে আমি নির্বাচন চালিয়ে যাবো।সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকালে ২১ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী প্রচারণাকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তৈমূর আলম প্রসঙ্গে তিনি এসব বলেন। তিনি বলেন, তৈমূর আলম খন্দকার তো গডফাদারের বাইরে নয়। উনি আমাকে গডমাদার বলে খুব খারাপ কাজ করেছে। উনাকে আমি এ ধরনের কথা বলিনি। তৈমূর আলম আশ্রয় নিয়েছে আমি সেই কথাটা বলেছি। উনি যদি তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় না দাঁড়াতেন তাহলে চারজন চেয়ারম্যান কিন্তু দাঁড়াতো না।

প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার সম্পর্কে আইভী বলেন, তাঁর (তৈমুর) কর্মকাণ্ডে ফুটে উঠেছে, তিনি শামীম ওসমানের প্রার্থী। দুই বছর ধরে তাঁর বিরুদ্ধে শামীম ওসমান যে গ্রাউন্ড তৈরি করেছেন, সেটি তিনি (তৈমুর) তোতাপাখির মতো সংবাদ সম্মেলনে বলে গেছেন। আইভী বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জবাসী যেকোনো কাজে সব সময় আমাকে কাছে পেয়েছেন। এই শহরের মানুষ একদম কথা বলতে পারতেন না। ভয়ে থাকতেন খুন, চাঁদাবাজির, তখন আমি জানি না অপর প্রার্থীরা কোথায় ছিলেন। আমি আমার বিগত ১৮ বছরে দেখিনি কোনো প্রার্থীকে এ রকম সরব থাকতে।’ তিনি আরও বলেন, তৈমুর আলম খন্দকারকে ত্বকী হত্যা নিয়ে কোথাও সমাবেশ করতে দেখা যায়নি। অথচ এত আলোচিত হত্যাকাণ্ড। আইভী বলেন, শুধু ত্বকী নন, এই শহরে আশিক, ভুলু ও চঞ্চলকে হত্যা করা হয়েছে। তাঁদের কোথাও দেখিনি একটি কথা বলতে ও প্রতিবাদ করতে।

শামীম ওসমানের সমর্থনের ব্যাপারে আইভী বলেন, আমি বলি নাই শামীম ওসমানের সমর্থন দরকার নাই। আমার দল যেহেতু নমিনেশন দিয়েছে আমাকে দলের লোকেরা আমাকে ভোট দিবে। যদি দুই একজন ব্যতিত হয় সেটা আলাদা ব্যাপার। ভোটারদের কাছে অপরিহার্য নয় কে সমর্থন দিলো। সাধারণ ভোটার আমার মা বোনদের মাথা ব্যাথা নেই কে আমাকে সমর্থন দিলো। দল আমাকে নমিনেশন দিয়েছে এটাই তাদের কাছে বড় ব্যাপার। ভোটাররা বেছে নিয়েছে তারা ভোট কাকে দিবে। প্রচারণায় আইভীর সাথে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল কাদির, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রানু খন্দকার, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবেদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ুন কবির এলিন, কাউন্সিলর প্রার্থী হান্নান সরকার, শাহিন মিয়া, শিউলি নওশাদ, মায়ানুর, মহানগর যুবলীগের সহসভাপতি কামরুল হুদা বাবু, যুবলীগ নেতা আব্দুল মোতালিব, শরীফ হীরা, হিমেল খানসহ স্থানীয় বীর মুক্তিযোদ্ধা ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

এই বিভাগের আরো খবর