শুক্রবার   ২১ জানুয়ারি ২০২২   মাঘ ৮ ১৪২৮

নৌকার নয়, জনগণের প্রার্থী আইভী

যুগের চিন্তা অনলাইন

প্রকাশিত: ৭ জানুয়ারি ২০২২  

# স্থানীয় এই নির্বাচনে আ.লীগ বিএনপি সহ সব দলের লোকেরা তাকে ভোট দিতে প্রস্তুত


নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র আইভী এবার এতোটাই জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন যে নিজেই একটি ব্র্যান্ড হিসাবে আবির্ভূত হয়েছেন। তিনি যেখানেই যাচ্ছেন সেখনেই নামছে নারী পুরুষের ঢল। তাই মেয়র প্রার্থী ডাক্তার সেলিনা আইভী এবার কেবল নৌকার বা আওয়ামী লীগের প্রার্থী নন, বরং তিনি গণমানুষের প্রার্থী হিসাবে বিবেচিত হচ্ছেন। তিনি এতোটাই জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন যে দলমত নির্বিশেষে সকল মানুষ তাকে ভোট দেয়ার জন্য উম্মুখ হয়ে আছেন। এমন কি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকার বিএনপির নেতাকর্মীদের একটি বড় অংশ এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে আইভীকে ভোট দিতে যাচ্ছেন। গত কয়েক দিনে নারায়ণগঞ্জ শহর, বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় খোঁজ নিয়ে এমন চিত্রই লক্ষ্য করা গেছে। 

 

শুধু তাই নয় এই সিটি করপোরেশন এলাকায় মেয়র আইভী এতোটাই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন যে তিনি যেখানেই যাচ্ছেন সেখানেই বিপুল সংখ্যক নারী ও শিশুরা রাস্তায় নেমে আসছেন তাকে এক নজর দেখার জন্য। তিনিও শিশুদের এবং নারীদের কাছে পেয়ে গভীর মমতায় কাছে টেনে নিচ্ছেন। অনেক মায়ের কাছ থেকে একেবারে দুধের শিশুকে কোলে তুলে নিচ্ছেন মেয়র আইভী। আবার বৃদ্ধারা এসে মেয়র আইভীকে বুকে টেনে নিচ্ছেন। তার জন্য প্রান ভরে দোয়া করছেন। নারীরা অনেকেই তার গাল টিপে, নাক টিপে তাকে আদর করছেন। এ যেনো এক অভূতপূর্ব দৃশ্য। তাই তিনি বিশেষ কোনো দলের বা মার্কার প্রার্থী নন, বরং তিনি সর্ব স্থরের জনগনের প্রার্থী হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছেন।


এদিকে এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ শহরের বাবুরাইল এলাকার বাসিন্দা জহিরুল ইসলাম বলেন, আমি বিএনপির একজন সমর্থক। কিন্তু ভোট দেবো আইভীকে। তিনি আরো বলেন এর আগেও আমি আইভীকেই ভোট দিয়েছি। কারন এটা স্থানীয় নির্বাচন। এই নির্বাচনে সরকার পরিবর্তন হয় না। তার উপর মেয়র আইভী সারা নারায়ণগঞ্জে যে উন্নয়ন করেছেন তা নজিরবিহীন। তিনি আরো বলেন দেওভোগ বাববুরাইল এলাকাকেতো তিনি একটি পর্যটন এলাকা হিসাবে গড়ে তুলেছেন। তাই আমি যেই দলই করি না কোনো মেয়র পদে আইভীকে ভোট না দিলে তার সাথে বেঈমানী করা হবে। তিনি আরো বলেন, আমি মনে করি নারায়ণগঞ্জ শহরে এবার আশি শতাংশের বেশি ভোট পাবেন মেয়র আইভী। আমরা তাকেই ভোট দেবো। কারন তিনি বিশেষ কোনো দল বা মার্কার প্রার্থী নন, তিনি জনগনের প্রার্থী।


একই রকম প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেন সিদ্ধিরগঞ্জের হিরাঝিল এলাকার বাসিন্দা মনোয়ার হোসেন দুলাল। তিনি বলেন, মেয়র আইভীর সাথে যে তৈমুর আলম খন্দকার নির্বাচন করছেন তিনিতো উত্তর পাড়ার প্রার্থী। ওসমান এমপিরা তাকে প্রার্থী করেছেন। তাই তিনি নির্বাচিত হলে সিটি করপোরেশন চালাবেন ওসমানরা। আর সেটা করা হলে উন্নয়নের পরিবর্তে লুটপাট হবে। নারায়ণগঞ্জে বেড়ে যাবে সন্ত্রাস। তাছাড়া তৈমুর আলম খন্দকারের ব্যাক্তিগত ইমেজও ভালো নয়। বিআরটিসির চেয়ারম্যান থাকা কালে তিরি লুটপাট চালিয়েছেন। কিন্তু মেয়র আইভী ব্যাতিক্রম। তিনি কাজ করেছেন ভালো। সিদ্ধিরগঞ্জের এমন কোনো এলাকা নেই যেখানে মেয়র আইভী ব্যাপক উন্নয়ন করেন নাই। তাই আমরা তিনি কোন দলের প্রার্থী সেটা দেখবো না। তিনি কোন মার্কা নিয়ে এসেছেন সেটাও দেখবো না। আইভী যে মার্কায়ই নির্বাচন করুক না কোনো আমরা তাকেই ভোট দেবো।


একই রকম প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করেন বন্দরের সোনাকান্দা এলাকার আলআমিন পোদ্ধার। তিনি বলেন, এলাকার সবাই জানে পারিবারিক ভাবেই আমরা বিএনপির সমর্থক হিসাবে পরিচিত। কিন্তু বিগত নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আমরা নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়েছি। এই ভোট আমরা নৌকা প্রতিককে দেই নি। দিয়েছি আইভীকে। এবারও আমাদের পরিবারের  ভোট আইভীকেই নৌকা মার্কায় দেবো। কারন তিনি ভালো উন্নয়ন করেছেন। ব্যাক্তি হিসাবেও তাকে সৎ মনে হয়, তিনি কথা বলেন স্পষ্ট ভাষায়। যা করেন তার সবই করেন জনগনের স্বার্থে। তাই আইভী যে প্রতিক নিয়েই আসুক না কেনো আমরা তকেই ভোট দেবো। এখানে প্রতিক কোনো ফ্যাক্টর নয়, বরং ব্যাক্তিই ফ্যাক্টর। জনগনের প্রার্থী আইভী। আমরা আইভীকেই নৌকা প্রতিকে ভোট দেবো।

এই বিভাগের আরো খবর