শনিবার   ২৮ মে ২০২২   জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯

পুলিশের ধাওয়ায় যুবকের মৃত্যু, কাউন্সিলর আশার বিরুদ্ধে হত্যা মামলা

বন্দর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৮ মে ২০২২  

# অভিযুক্ত পুলিশের উপ-পরিদর্শক রওশন ফেরদৌসকে প্রত্যাহার করা হয়েছে : ওসি

 

বন্দরের বাগ বাড়িতে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পুকুরে ডুবে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। গত বুধবার দুপুরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে। রাতে ময়না তদন্ত শেষে নিহতের স্বজনরা লাশ দাফন করে। নিহতের নাম নিলয় আহাম্মেদ বাবু (২৭)। গত রবিবার রাতে বন্দর পুলিশ ফাঁড়ির দারোগা রওশন ফেরদৌস একটি চুরির অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে ধরতে এলে সে পুলিশের ধাওয়া থেকে একটি পরিত্যক্ত মজা পুকুরে ঝাঁপ দেয়।

 

এর পর থেকে সে নিখোঁজ হয়ে যায়। এ ঘটনায় দারোগা রওশন ফেরদৌসকে ক্লোজ করা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পরে। এবং চুরির অভিযোগকারী নারী হাসিনা বেগম এলাকাবাসী আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে পুলিশ গত সোমবার তাকে আদালতে প্রেরণ করে। স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ বাগবাড়ি এলাকার হাসিনা বেগম নামে এক নারী একই এলাকার শোভা মিয়ার ছেলে নিলয় আহাম্মেদ বাবুর বিরুদ্ধে থানায় চুরির অভিযোগ

 

করে। এ অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ বাবুকে ধরতে এলে সে পুলিশ দেখে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় পুলিশ তাকে ধাওয়া দিলে সে একই এলাকার আনোয়ার মিয়ার বাড়ির পরিত্যাক্তি পুকুরে ঝাঁপ দেয়। তখন পুলিশসহ কিছু পুকুরে ইটপাটকের নিক্ষেপ করে। ইটের আঘাতে বাবু পুকুরে তলিয়ে যায়। পরে পুলিশ চলে যায়।

 

পুকুরে বড় বড় কচুরিপানায় ভরা থাকায় পুলিশ ধারনা করেছে সে উঠে পালিয়ে গেছে। এর পর থেকে সে নিখোঁজ থাকে। গত রবিবার সকালে এলাকাবাসী পুকুরে তার লাশ দেখে পুলিশে সংবাদ দেয়। পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। এলাকাবাসী সূত্রে আরো জনা যায়, ধৃত হাসিনা বেগম চুরির ঘটনাটি স্থানীয় কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশাকে জানালে আশা স্থানীয় পঞ্চায়েতের লোকদের ডাকলেও তারা কাউন্সিলরের ডাকে

 

সারা দেয়নি। পরে সে থানায় অভিযোগ করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে দারোগা রওশন ফেরদৌস বিষয়টি যাচাই না করেই বাবুকে গ্রেফতারের জন্য ধাওয়া করায় ও পুকুরে ইটপাটকে নিক্ষেপ করায় বাবু নিহত হয়েছে। ঘটনাস্থলে সাবেক কাউন্সিলর সাউফুদ্দিন আহাম্মেদ দুলাল প্রধান প্ররিদর্শন করে। এ সময় এলাকার গুটি কয়েক লোক বর্তমান কাউন্সিলর আশাকে অভিযুক্ত করে নানা কথা বলে।

 

এ ব্যপারে বন্দর থানার ওসি দিপক চন্দ্র বলেন, পুলিশ সুপার ঘটনাটি অবগত হয়ে দারোগা রওশন ফেরদৌসকে ক্লোজ করেছেন। যদি দারোগা ফেরদৌস ঘটনার সাথে জড়িত থাকে তদন্ত পূবর্ক তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে এলাকাবাসী বাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগকারী হাসিনা বেগমকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

 

আটক হাসিনাকে পুলিশ থানায় নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকার শত শত লোক উত্তেজিত হয়ে উঠে এবং পুলিশের সামনেই তার উপর হামলা করে। পুলিশ অনেক কষ্টে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে আটক দুইজনকে থানায় নিয়ে যায়। লাশ দাফন শেষে নিহতের মা রাতেই অদৃশ্য ইশারায় স্থানীয় কাউন্সিলর আবুল কাউসার আশাকে হুকুমের প্রধান আসামী করে ১০ জনের বিরুদ্ধে হত্যাসহ লাশ গুমের মামলা করে।

 

এ ব্যপারে কাউন্সিলর আশা বলেন, আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। আমাকে অহেতুক জড়িয়ে মিথ্যা মামলা করেছে। আমিও এর সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করছি। যেখানে পুলিশের ধাওয়ায় একজন যুবক পুকুরে ডুবে মারা গেল সেখানে আমাকে জড়িয়ে মিথ্যা মামলা করা হলো। আমি প্রশাসন ও মিডিয়ার প্রতি আহবান জানাই তারা যেন সঠিক তদন্ত ও সঠিক সংবাদ প্রকাশ করেন।

এই বিভাগের আরো খবর