সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১   শ্রাবণ ১১ ১৪২৮

ফতুল্লায় চালককে হত্যা করে ইজিবাইক ছিনতাই, আটক-২

ফতুল্লা প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৫ জুলাই ২০২১  

ইজি বাইক চালাতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মুসলিমনগরের মরা খালপাড়েরর ভাড়া বাসা থেকে বের হয়েছিল রবিন (৩৫)। রাতে বাসায় না ফেরায় পরিবারের লোকজন ও ইজি বাইকের মালিক সাজেদাও ছিল চিন্তিত। অবশেষে বুধবার সকালে রবিনের লাশ ফতুল্লার বক্তাবলীর ফেরীঘাট সংলগ্ন একটি পুকুরের পাড় থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় লাশের গলায় ও মুখমন্ডলে আঘাতের চিহ্ন ছিল বলে জানিয়েছে প্রত্যক্ষদর্শীরা।

 

অপরদিকে ছিনতাই করা ইজি বাইকটি বুধবার সকালে বিক্রি করতে গিয়ে  ধর্মগঞ্জ পাকা পুল এলাকার রিক্সার গ্যারেজে রিফাত নামে একজন আটক হয়। তার দেয়া তথ্যের উপর ভিত্তি করে পুলিশ অবন্তি কালার ট্যাক্সের সুইং অপারেটর জিহাদকেও আটক করা হয়েছে। পুলিশ রবিনের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে  পাঠিয়েছে। সম্প্রতি ফতুল্লায় ইজি বাইক চালককে হত্যা করে বেশ কয়েকটি ইজি বাইক ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে।

 

ইতিমধ্যে পুলিশ ঘটে যাওয়া হত্যাকান্ডের রহস্যও উদঘাটনসহ ঘটনার সাথে জড়িতদেরও গ্রেফতার করেছে। তবে বুধবার রাতে ইজি বাইক চালককে হত্যা করে আরেকটি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। বুধবার সকালের দিকে ফতুল্লার বক্তাবলী ফেরীঘাট সংলগ্ন একটি পুকুরের পাড়ে এক ব্যাক্তির লাশ পরে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের গলায় ও চেহারায় আঘাতের চিহ্ন দেখতে পায়। এরই মধ্যে ধর্মগঞ্জ পাকাপুল এলাকার একটি গ্যারেজে ছিনতাই হওয়া ইজিবাইকটি রিফাত নামের এক ব্যাক্তি বিক্রি করতে গেলে ঐখানেই রিফাতকে আটক করে পুলিশের সোপর্দ করে জনগণ।

 

ইজি বাইকের মালিক সাজেদা বলেন,ইজি বাইক চালক রবিন তার স্ত্রী ও ৬ মাসের একটি কন্যা সন্তান নিয়ে তার বাড়িতেই ভাড়া থাকেন। তিনি রবিনকে একটি ইজি বাইক কিনে দিয়েছিলেন। ইজিবাইকটি মুসলিম নগর নয়াবাজার এলাকার বিল্লালের গ্যারেজ চার্জের জন্য রাখেন তিনি। লক ডাউনের কারনে গত কয়েকদিন ধরে ইজি বাইক চালাতে পারেনি রবিন। এতে তার সংসারে টানা পোড়নও চলছিল। মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে রবিন গ্যারেজ থেকে ইজি বাইকটি নিয়ে বের হয়েছিলেন। রাত ১ টা নাগাদ রবিন গ্যারেজে না ফেরার খবর শুনে তিনি রবিনের মোবাইলে ফোন করেছিলেন একাধিকবার। কিন্তু  রবিনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি রিসিভ হয়নি। রাতেই তিনি বিভিন্ন স্থানে রবিন ও তার ইজি বাইকটি খোঁজাখুঁজি করেন। কিন্তু কোথাও ইজি   তিনি কোনো খোঁজ পাননি।  

 

তিনি আরো জানান, বুধবার সকাল ১০ টার দিকে এক ব্যাক্তির মোবাইল ফোন থেকে তার মোবাইলে ফোন আসে। এসময় ঐ ব্যাক্তি জানান তার কোনো ইজি বাইক আছে কিনা। তিনি প্রতিউত্তরে বলেছিলেন, তার একটি ইজি বাইক ও চালক গত রাত থেকে নিখোঁজ। পরে ঐ ব্যাক্তির দেয়া ঠিকানা মতো ধর্মগঞ্জ পাকাপুল এলাকার একটি রিক্সার গ্যারেজে গিয়ে তিনি তার ইজি বাইকটি দেখতে পান। কিন্তু এসময় তিনি রবিনকে দেখতে না পেয়ে তার খোঁজ করেন। এরই মধ্যে থানায় ফোন করে পুলিশের হাতে রিফাতকে তুলে দেন স্থানীয়রা। পরবর্তীতে তিনি খবর পান বক্তাবলী ফেরীঘাটের কাছাকাছি একটি পুকুরে এক ব্যাক্তির লাশ পরে আছে। পরে তিনি সেখানে গিয়ে রবিনের লাশ সনাক্ত করেন।

 

 এ ব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ রকিবুজ্জামান বলেন, রিফাতকে আটক করার পর  তার দেয়া তথ্য মতে অবন্তী কালারট্যাক্স থেকে জিহাদ নামের একজনকে আটক করা হয়। আটককৃত রিফাত ও জিহাদ উভয়ে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রবিনকে গলায় গামছা প্যাঁচিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। মামলার স্বার্থে বিস্তারিত এখন কিছু বলা ঠিক হবেনা বলেও তিনি জানান।  তিনি  আরো জানান,এব্যাপারে নিহতের পরিবারে পক্ষ থেকে মামলা দায়ের প্রস্তুতী  নিয়েছে।
 

এই বিভাগের আরো খবর