শনিবার   ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১   আশ্বিন ২ ১৪২৮

বাদল চেয়ারম্যানকে ভয় পায়

যুগের চিন্তা অনলাইন

প্রকাশিত: ৭ সেপ্টেম্বর ২০২১  

নারায়ণগঞ্জের ইউনিয়নগুলোতে নির্বাচনের হাওয়া বইছে। সদর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিভিন্ন সভা করে নিজেদের অবস্থান তৈরী করছেন। সেই সাথে মাঠে ময়দানে হাটে বাজারে গিয়ে ভোটারদের মন জয়ের চেষ্টা করছে। অন্যান্য ইউনিয়নের মত সদর উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়নের প্রার্থীরা নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। এই ইউপিতে ২০১৬ সনের নির্বাচনে একতরফা ভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাইফ উল্লাহ বাদল। এবারও তিনি একই পথে হাটছেন বলে জানান একাধিক ব্যক্তি। তবে স্থানীয়দের ভাষ্য মানুষ ভোট দিতে চায়। ভোটের মাধ্যমে যে নির্বাচিত হবে তারা তাকে মেনে নিবে।

 


এদিকে কাশিপুর ইউনিয়নে ক্ষমতাসিন দলের দুজন ব্যক্তি নৌকা প্রতীক চাইবে বলে জানা যায়। তারা দুজনেই আওয়ামীলীগের রাজনীতি করেন। তাদের মাঝে একজন শামীম ওসমানের খুব কাছের ব্যক্তি কাশিপুর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাইফ উল্লাহ বাদল। তার বিপরীতে আছেন সাবেক চেয়ারম্যান মোমেন সিকদার। বয়সে ও যোগ্যতায় কেউ কাউর থেকে কোন দিক দিয়ে পিছিয়ে নেই। তবে জনপ্রিয়তায় এগিয়ে আছেন সাবেক চেয়ারম্যান মোমেন সিকদার।    

 


একাধিক ব্যক্তি জানান, মুরুব্বি এবং ক্ষমতাসিন দলের নেতা হওয়ায় কাশিপুরের অভিভাবক হিসেবে বাদল চেয়ারম্যান সকলে নির্ধিদায় সম্মান করেন। বাদল চেয়ারম্যানের অনুগত আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরাসহ ইউনিয়নের সাধারণ মানুষ মোমেন সিকদারকে চেয়ারম্যান হিসেবে চায়। কিন্তু বাদল চেয়ারম্যানের ভয়ে কেউ সরাসরি তা বলতে পারে না। কিছু সংখ্যক নেতাকর্মীরা তাকে তেল মেরে চেয়ারম্যান নির্বাচন করার জন্য, সবাই জ্বী হুজুর, জ্বী হুজুর করে।

 

তাছাড়া কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যানের বয়সের ভারে তিনি তেমন একটা লড়াচরা করতে পারেন না। বাসায় বসে সকল ধরনের কার্যক্রম চালান। ইউনিয়নের বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ নিজে গিয়ে পরিদর্শন করতে যান না। দলীয় এবং সামাজিক বিচার আচার ঘরে বসেই পরিচালনা করেন। এজন্য অনেককে ভোগান্তি পোহাতে হয়। সচেতন মহল থেকে প্রশ্ন তুলেছে একজন জনপ্রতিনিধিকে যদি তার এলাকার মানুষ ভয় পায়া তিনি কিভাবে মানুষের সেবা করবে। কেননা সেবক হতে হলে মানুষের সাথে মিশতে হবে।

 


ফারহানা রহমান নামের এক ব্যক্তি জানান, গত বার এমপি শামীম বলেছিল সাইফ উল্লাহ বাদলকে নির্বাচন  জয়ী করতে। আমরা তার কথা অনুযায়ী বিনা ভোটে তাকে চেয়ারম্যান হিসেবে জয়ী করেছি। সাবেক চেয়ারম্যান মোমেন সিকদারকে এই বারের জন্য প্রস্তুত হতে বলেছে। সেই হিসেবে বাদল চেয়ারম্যানের উচিত কাশীপুরের অভিভাবক হিসেবে মোমেন সিকদারকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হতে সমর্থন করা। তৃণমূল তাকে চায় না। বাদল চেয়ারম্যানকে ভয় পায়। কারণ তার অবাধ্য হলেই সবাই কোনঠাসা হয়ে পড়বে। ভয়ে সবাই তার সাথে স্রোতে গা ভাসায়।

 

এ বিষয়ে কাশিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইফ উল্লাহ বাদলের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা হলে তার ব্যবহৃত মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।

 

কাশিপুর ইউপি সাবেক চেয়ারম্যান মোমিন সিকদার বলেন, এবার নির্বাচনেও আমি প্রার্থী হবো। তবে এক্ষেত্রে আমার নেতা এমপি শামীম ওসমানের অনুমুতি নিয়ে প্রার্থী হবো। কয়েক দিনের মাঝে তার সাথে কথা বলবো। কেননা তিনি ২০১৬ সনে আমাকে বলেছে বাদল ভাই এবার হউক। আমাকে ২০২১ সনের নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে বলেন। সেই অনুপাতে আমি প্রস্তুত আছি। এমপি শামীম ওসমান যদি বলে দুজনে যেহেতু আমার দলের নেতা তাই নির্বাচন করে আসেন। সেক্ষেত্রে আমি জয়ী হবো।
 

এই বিভাগের আরো খবর