রোববার   ১১ এপ্রিল ২০২১   চৈত্র ২৭ ১৪২৭

মাও.আউয়ালের সাথে স্বাক্ষাতে হেফাজতের জুনায়েদ হাবীব-মামুনুল হক

যুগের চিন্তা অনলাইন

প্রকাশিত: ৩১ মার্চ ২০২১  

হেফাজতে ইসলাম নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মাওলানা আবদুল আউয়াল সংগঠন থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই তার সাথে স্বাক্ষাতের জন্য হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতারা নারায়ণগঞ্জে এসেছেন। বুধবার (৩১ মার্চ) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটি জামে মসজিদে মাওলানা আউয়ালের সাথে স্বাক্ষাতের জন্য আসেন কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরী কমিটির সভাপতি জোনায়েদ আল হাবীব,  কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরীর সাধারণ সম্পাদক আল্লামা মামুনুল হক, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব নাসির উদ্দিন মনির, সহকারী যুগ্ম মহাসচিব ফজলুল করীম কাসেমীসহ আরো বেশ কয়েকজন হেফাজত নেতা মাওলানা আউয়ালের সাথে স্বাক্ষাতের জন্য এসেছেন। 

  
সোমবার (২৯ মার্চ) রাতে পবিত্র শবে বরাতের বয়ানে হেফাজতে ইসলাম নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মাওলানা আবদুল আউয়াল সংগঠন থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন । তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও আমাদের বুঝতেছেনা, আমাদের লোকেরাও বুঝতেছেনা। অতি উৎসাহীওয়ালারাও বুঝেনা। তারা বলছে, হুজুর হরতালের দিন গেলোনা কেন। আমি বলতেছি, আমি আর দল করবোনা, আমি মসজিদে থাকবো। আমি আর সরাসরি নেতৃত্ব দিয়ে কোন কাজে যাবোনা, যাবোনা, যাবোনা। আমি একবারে নিষেধ করেছি।  যারা অতি উৎসাহী আছো তোমরা কর, আমার বৃদ্ধ বয়স, অসুস্থ মানুষ, হাঁটতে পারিনা, দাঁড়াতে পারিনা। তাই আমি আর হেফাজতের কোন নেতৃত্ব দিবো, আন্দোলনেও নেতৃত্ব দিবোনা। কর্মী হিসেবে যতদিন পারি থাকবো। এটা সরাসরি জানিয়ে দিচ্ছি, সাংবাদিক সম্মেলন করে ইস্তেফা দিয়ে দিবো। হেফাজতের নেতৃত্ব আর দিবোনা।


মাওলানা আউয়াল বলেন, ২৯ মার্চ আছরের পর আমার এখানে দোয়া ছিল, তারা এটা উপেক্ষা করে দেওভোগ মাদ্রাসায় গিয়ে দোয়া পড়ছে। আমারে অটোমেটিক সাইড করছে, তারা বলে এমন নেতা দিয়ে আর চলবোনা। আমিও আল্লাহর হস্তে নেতৃত্ব ছেড়ে দিলাম, আর নেতৃত্ব দিবোনা। হেফাজতের আমির হওয়ার দরকার নেই, সাধারণ মুসলমান হিসেবে বেঁচে থাকবো। আর কোন ডাক নেতৃত্বের পক্ষ থেকে আসবেনা। আমাকে মাইনাস করে বলতেছে, কেন আমি বের হলাম না। 


রোববার হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতাল প্রসঙ্গে মাওলানা আব্দুল আউয়াল বলেন, সেই দিন র‌্যাব-পুলিশ এমনভাবে দাঁড়িয়েছিল আমরা মসজিদ থেকে বের হলেই গুলি করতো। তারা অ্যাকশনে চলে গেলে আমাদের কাছে তো অস্ত্র নেই আমরা তো পারবোনা। যার জন্য ডিআইটি মসজিদের আমগাছ তলা পর্যন্তই আমরা সীমাবদ্ধ ছিলাম। পরে শোনা যাচ্ছে, চিটাগাংরোডে ১৭টি গাড়ি পুড়েছে, কারা পুড়েছে তা ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়। কিছু সন্ত্রাসী লোকেরা পুড়েছে, আমাদের ছাত্ররা নাই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলছে, আপনি যদি আমাদের কথাগুলো না মানতেন তবে এই মামলাগুলো সব আপনাদের নামে হতো। এক নম্বর আসামী আপনি হতেন।


এরআগে সোমবার (২৯ মার্চ) বিকেলে ফতুল্লার দেওভোগ মাদ্রাসা জামে মসজিদে হেফাজতে ইসলাম নারায়ণগঞ্জ মহানগর আয়োজিত এক সভা শেষে বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সভাপতি মাওলানা ফেরদৌসুর রহমান। তিনি জানান, গতকাল হেফাজতের হরতাল কর্মসূচি ছিল কেন্দ্রীয় ঘোষণা। মাওলানা আব্দুল আউয়াল নিজ উদ্যোগে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি বন্ধের ঘোষণা দিতে পারেননা। কিন্তু তিনি তাই করেছেন। আমরা তাকে বহিঃষ্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ পাঠাচ্ছি। আশা করছি, তিনি বহিঃষ্কার হতে পারেন। 


হেফাজত ইসলাম জেলার সাধারণ সম্পাদক মুফতি বশিরউল্লাহ সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন হেফাজত ইসলাম মহানগরের সভাপতি মাওলানা ফেরদৌসুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মুফতি হারুন অর রশিদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. আলী হোসেন, অর্থ সম্পাদক মুফতি দেলোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর আহম্মদ উল্লাহ, মাওলানা রুহুল আমিন, জমিরউদ্দিন ফারুকি, মুফতি আনিস আনসারি প্রমুখ।


প্রসঙ্গত, গতকাল হেফাজতের ডাকা হরতালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে কয়েকটি স্পটে বাস-ট্রাকে আগুন, সড়কে আগুন, পুলিশের সাথে সংর্ঘর্ষ, সাংবাদিককে মারধরের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত অর্ধশত আহত হন। প্রায় সারাদিন সাইনবোর্ড থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার রাস্তা বন্ধ থাকে। দফায় দফায় হেফাজত কর্মীদের সাথে পুলিশের সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। 
 

এই বিভাগের আরো খবর