বুধবার   ১৯ মে ২০২১   জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪২৮

মেয়াদ বাড়িয়েও ঝুলছে ডুয়েলগেজ প্রকল্প 

শাহজাহান দোলন

প্রকাশিত: ১১ এপ্রিল ২০২১  

নিরাপদ এবং সাশ্রয়ী হওয়ায় বাংলাদেশর মানুষ যাতায়াতের মাধ্যম হিসেবে অনেক আগে থেকেই রেলওয়েকে অগ্রাধিকার দিয়ে আসছে। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির বদৌলতে তা এখনো অব্যাহত রয়েছে। তাই জনগণের এই চাহিদাকে মাথায় রেখে ও যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ২০১৫ সালে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে নিজস্ব অর্থায়নে ডুয়েল-গেজ রেললাইন নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। এরপর ২০১৭ সালে ৩৭৮ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ব্যয়ে পাওয়ার চায়না কন্সট্রাকশন নামে একটি বিদেশী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অধীনে এই মেগা প্রকল্পের কাজ শুরু হয়।

তবে চুক্তি অনুযায়ী ২০১৯ সালে প্রকল্পটির কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও জমিসংক্রান্ত জটিলতা ও বেশ কয়েকটি কারণে নির্মাণ কাজ বিলম্বিত হওয়ায়, নির্ধারীত সময়ে এই কাজ শেষ হয়নি। প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও বিআইডব্লিউটিএ’র সাথে সীমানা নিয়ে সমস্যা, রেলওয়ের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ আর সেই সঙ্গে নির্মাণ কাজ বৃদ্ধির ফলে এ পর্যন্ত তিন তিন বার প্রকল্পটির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।
 
তবে ২০২২ সালের মধ্যে এই মেগা প্রকল্পটির কাজ শেষ হবে বলে নিশ্চিত করেছেন প্রকল্পের বর্তমান পরিচালক সেলিম রাউফ। তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন সমস্যার জন্যে আমাদের কাজে অবশ্যই ধীরগতি এসেছে, এতে আমরা প্রকল্পের মেয়াদ বাড়িয়েছি ৩ বার। তবে এখন দ্রুত গতিতে কাজ চলছে। আশা করি আগামী ১৭ থেকে ১৮ মাসের মধ্যেই নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হবে।’
 
এদিকে জানতে চাইলে এ পর্যন্ত প্রকল্পের ৭৬ দশমিক ২ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, পুরো কাজ শেষ হলে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে ট্রেন চলাচল ব্যবস্থায় এবং অবকাঠামোগত ক্ষেত্রে ব্যপক পরিবর্তন হবে।
 
এছাড়া এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল বলেন, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ডুয়েলগেজ রেললাইনের কাজ দ্রুত শেষ হলে, ঢাকা এবং আমাদের শহরের যানজটের সমস্যা অনেকটাই কমে যাবে। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতী হলে ব্যবসায়ীরা স্বাভাবিক ভাবেই নারায়ণগঞ্জে বিনিয়োগ বাড়িয়ে দিবে। ফলে লাখ লাখ মানুষের নতুন কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে এখানে।  তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যত দ্রুত এই কাজ শেষ করলে আমাদের জন্য ভালো হবে।
 
অন্যদিকে  প্রকল্পের বিবরণ থেকে জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন থেকে ঢাকার গেন্ডারিয়া পর্যন্ত ১২ দশমিক ১০ কিলোমিটার  দৈর্ঘ্যরে ডুয়েলগেজ রেললাইনের এই মেগা প্রকল্পের আয়োতায় থাকছে; নারায়ণগঞ্জ, পাগলা, ফতুল্লা ও শ্যামপুরে ৫ টি নতুন স্টেশন বিল্ডিং। সেই সঙ্গে থাকছে নারায়ণগঞ্জ, চাষাঢ়া, ফতুল্লা, পাগলা ও শ্যামপুরে নতুন ৫ টি প্লাটফর্ম এবং যাত্রী পারাপারের জন্য ১১ টি ফুট ওভার ব্রিজ। অন্যদিকে রেলওয়ের কর্মচারীদের জন্য আবাসিক ভবন, নারায়ণগঞ্জে দুটি ওয়াশপিট লাইন ও ১টি অফিসকাম ডরমিটরী। এছড়া ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত নতুন সিগনালিং ব্যবস্থাও থাকছে এই প্রকল্পের আওতায়।
 

এই বিভাগের আরো খবর