মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০২৪   আষাঢ় ১১ ১৪৩১

আমরা বঙ্গবন্ধুর কাছে অধিকার আদায় করতে শিখেছি : সাউদ নুর

যুগের চিন্তা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২৬ এপ্রিল ২০২৪  

 

ঢাকা বিভাগীয় ১৭ থেকে ২০ গ্রেড সরকারি কর্মচারী সমিতির আহ্বায়ক সাউদ নুর এ শফিউল কাদির বলেন, আমরা দীর্ঘ দিন যাবৎ আমাদের সংগঠনের মাধ্যমে আমাদের দাবী জানিয়ে সরকারের তুলে ধরে আন্দোলন করে যাচ্ছি। সবাই বলে কিন্তু কেউ করে না। আমরা করে দেখাবো। সম্প্রতি সময়ে আমাদের উপর গোয়েন্দা সংস্থার যে চাপ গুলো ছিল তা আমরা কাটিয়ে উঠতে পেরেছি। আমরা অনেক জায়গায় প্রোগ্রাম করতে পারি নাই।

 

আমরা বঙ্গবন্ধুর কাছে অধিকার আদায় করতে শিখেছি। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে শিখেছি বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে। আমাদের পেটের দায়ে অধিকার আদায়ের জন্য রাজপথে আন্দোলন করে যাবো। আমাদের পেটে ক্ষুধা আছে। আর পেটের ক্ষুধা নিবারন করার জন্য আমরা কাজ করছি। গোয়েন্দা সংস্থার ভাইদের প্রতি আমাদের অনুরোধ আপনারা আমাদের দাবী গুলো সরকারের উচ্চ মহলে তুলে ধরবেন।

 

বৃহস্পতিবার ২৫ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ চাষাঢ়া সিনেমন রেস্টুরেন্টে নারায়ণগঞ্জ জেলা ১৭ থেকে ২০ গ্রেড সরকারি কর্মচারী সমিতির আয়োজনে ঈদ পূর্নমিলন ও বাংলা বর্ষবরণ সভায় তিনি এই কথা বলেন।

 

সাউদ নুর বলেন, ২ বছর আগে আমাদের দাবী আদায়ের জন্য ঢাকার রাজপথে যখন আন্দোলন করি তখন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন থাকায় তৎকালীন সমাজ কল্যানমন্ত্রী এসে আশ্বস্ত করেন প্রধানমন্ত্রী আমাদের দাবির বিষয়ে অবগত। গতবছরও আমরা আমাদের পেটের ক্ষুদার জন্য দাবী আদায়ে রাজপথে থেকেছি। তখন জাতীয় নির্বাচন এসে পরায় আমাদের চাপ দিয়ে আন্দোলন থেকে বিরত রাখা হয়। তখন আমাদের সচিবালয় ডেকে নিয়ে আমাদের বলা হয় আমরা যদি আন্দোলন করি তাহলে বিরোধী দল এই আন্দোলনের সুযোগ নেয়। তখন আন্দোলন কিছুটা থামানো হয়। কিন্তু আমরা আন্দোলন করে পাঁচ পার্সেন্ট এনে দিয়েছি। অথচ আমাদের থেকে কিছু কুলাঙ্গার বলেছে কিছুই আনতে পারি নাই।  

 

তিনি আরও বলেন, আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে আমাদের দাবী সংসদে উপস্থাপন করা হবে। এই সরকার গণতন্ত্র আন্দোলন করা শিখিয়েছে। এই সরকার দেশ স্বাধীন করা শিখিয়েছে। বাংলাদেশে আন্দোলন এবং দাবী আদায় করা তারা শিখিয়েছে। তাই তাদের কাছে দাবী আদায় করা এত সহজ না। যারা আউটসোর্সিংয়ে কাজ করেন তারা দ্রুত তাদেন বেতন তুলে নেন। কেননা আউটসোর্সিং বাতিল করার জন্য আমরা মামলা করতে যাচ্ছি। মামলা হওয়ার পর টাকা তুলতে পারবেন না। আউটসোর্সিংয়ে যাদের বয়স ৪০ নিচে আছে তাদের যেন সরকারি করণ করা হয় এবং যাদের বয়স ৪০ বয়সের উপরে তাদেরকে যেন ভালো সম্মানি দেয়া হয় মামলা এই কথা উল্লেখ্য থাকবে।

 

অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ জেলা ১৭ থেকে ২০ গ্রেড সরকারি কর্মচারী সমিতির সভাপতি মিরাজ হোসেনের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন- ৩শ’ শয্যা হাসপাতালের ডক্টর’স ওয়েল ফেয়ার এসোসিয়নের সভাপতি ডা. অলক কুমার সাহা, বিশেষ অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ১৭ থেকে ২০ গ্রেড কর্মচারী সমিতির কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি লোকমান হোসেন, মো. রাশেদুল ইসলাম, সম্রাট হোসেন, রাকিব আব্দুল্লাহ, মোকাররম হোসেন, জেলা নির্বাচন অফিসের কম্পিউটার অপারেটর মনির হোসেন সহ আরও অনেকে। এস.এ/জেসি

এই বিভাগের আরো খবর