রোববার   ২১ জুলাই ২০২৪   শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

ঊর্ধ্বমুখী সবজি-মাছ, কমলো মুরগি  

যুগের চিন্তা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৬ জুলাই ২০২৪  


এক সপ্তাহের ব্যবধানে নারায়ণগঞ্জে দিগু বাবুর বাজারে সব ধরনের মুরগির দাম কমেছে। আর চলতি সপ্তাহে সব ধরনের সবজি ও মাছের বাজার চড়া। শুক্রবার (৫ জুলাই) দুপুরে বাজার ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সপ্তাহ ব্যবধানে সব ধরনের সবজি দাম কেজিতে ২০ থেকে ৬০ টাকা বেড়েছে। বাজারগুলোতে গ্রীষ্মকালীন সবজি কচুর মুখী কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে  ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন কেজিতে ৬০ টাকা বেড়ে ১০০ থেকে ১২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
 

 


বাজারে করলার কেজি ১২০ টাকা, কাঁকরোল ১০০ টাকা, পটল ৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৮০ টাকা, বরবটি ১০০ টাকায়, লাউ প্রতিটি  ৫০ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপের কেজি ৬০ টাকা, ধুন্দল ৮০ টাকা, চিচিঙ্গা ৭০ টাকা, কচুর লতি ১০০ টাকা, ঝিঙা ৮০ টাকা, সজনে ২০০ টাকা এবং শস ৮০ থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
 

 


বাজারগুলোতে ফুলকপি প্রতিটি ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকা পিস, ব্রোকলি ৫০ টাকা পিস, পাকা টমেটো প্রকারভেদে ১৬০ থেকে ১৮০ টাকা এবং গাজর ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
 

 


এসব বাজারে লেবুর হালি ১০ থেকে ৪০ টাকা, ধনে পাতার কেজি ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা। কলার হালি বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়া কেজি ৪০ থেকে ৫০ টাকা।
 

 


এ ছাড়া বাজারগুলোতে লাল শাকের আঁটি ১৫ টাকা, লাউ শাক ৪০ টাকা, মুলা শাক ১৫ টাকা, পালং শাক ১৫ থেকে ২০ টাকা, কলমি শাক ১০ টাকা, পুঁই শাক ৩০ টাকা আঁটি।
 

 


সপ্তাহ ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজ কেজিতে ২০ টাকা বেড়ে ১১০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। চলতি সপ্তাহে আলু ৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। কাঁচামরিচের দাম কেজিতে ১০০ থেকে ১২০ টাকা বেড়ে ২৮০ টাকা থেকে ৩২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহেও কাঁচামরিচ ২০০ টাকা থেকে ২৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছিল।
 

 


বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সপ্তাহ ব্যবধানে কেজিতে ১০ টাকা কমে ব্রয়লার মুরগি ১৬৫ থেকে ১৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। গত সপ্তাহে ব্রয়লারের কেজি ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকা দরে বিক্রি হয়েছিল। বাজারগুলোতে সোনালি মুরগি ৩০০ থেকে ৩১০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। সোনালি হাইব্রিড ২৯০ টাকা, দেশি মুরগি ৬০০ টাকা, লেয়ার লাল মুরগি ৩৪০ টাকা এবং সাদা লেয়ার ৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
 

 


বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৬৫০ থেকে ৭৮০ টাকা, গরুর কলিজা ৭৮০ টাকা, মাথার মাংস ৪৫০ টাকা, গরুর বট ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকা এবং খাসির মাংসের কেজি এক হাজার ১৫০ থেকে এক হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
 

 


বাজারগুলোতে এক ডজন লাল ডিম বিক্রি হচ্ছে ১৫৫ টাকায়, হাঁসের ডিমের ডজন ১৮০ টাকা, দেশি মুরগির ডিমের হালি ৮৫ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে।
 

 


৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ মাছের কেজি এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রামের মাছ এক হাজার ৬০০ থেকে এক হাজার ৮০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। চাষের শিংয়ের কেজি (আকারভেদে) ৪০০ থেকে ৬৫০ টাকা, রুইয়ের দাম কেজিতে বেড়ে (আকারভেদে) ৩৭০ থেকে ৬০০ টাকা, মাগুর ৯০০ থেকে এক হাজার ২০০ টাকা, মৃগেল ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা।

 

 

পাঙাশ ১৯০ থেকে ২২০ টাকা, চিংড়ি ৮০০ থেকে ১ হাজার ৪০০ টাকায়, বোয়াল ৫০০ থেকে ৯০০ টাকা, কাতল ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, পোয়া ৪৫০ থেকে ৪৫০ টাকা, পাবদা ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা, তেলাপিয়া ২২০ টাকা, কই ২২০ থেকে ২৪০ টাকা, মলা ৬০০ টাকা, বাতাসি টেংরা ১ হাজার ৪০০ টাকা, টেংরা ৬০০ থেকে ৯০০ টাকা, কাচকি ৬০০ টাকা।

 

 

পাঁচমিশালি ২২০ টাকা, রূপচাঁদা ১ হাজার ২০০ টাকা, বাইম ১ হাজার ২০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা, দেশি কই ১ হাজার টাকা,  শোল ৬০০ থেকে ১ হাজার টাকা, আইড় ৭৫০ থেকে এক হাজার টাকা, বেলে ৮০০ টাকা এবং কাইক্ক্যা ৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।     এন. হুসেইন রনী  /জেসি