মঙ্গলবার   ২৩ এপ্রিল ২০২৪   বৈশাখ ১০ ১৪৩১

মহানগরের বিদ্রোহীরা কোনঠাসা

যুগের চিন্তা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২৫ মে ২০২৩  

 

# বিদ্রোহ করা ১৫ জন নেতা বর্তমানে দলীয় সকল কার্যক্রম থেকে মুখ ফিরিয়ে রেখেছেন।

 

 

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির কমিটি সাথে বিদ্রোহ করা ১৫ জন নেতা বর্তমানে দলীয় সকল কার্যক্রম থেকে মুখ ফিরিয়ে রেখেছেন। বর্তমানে দলীয় কোন প্রকারের কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায় না মহানগর বিএনপির বিদ্রোহী সেই নেতাকর্মীদের। কিন্তু বিগত দিন থেকেই এই বিদ্রোহী নেতাকর্মীদের বলতে দেখা গেছে যে, তারা সব সময় তৃর্ণমূল পর্যায়ের ত্যাগী নেতা হিসেবে পরিচয় দিয়ে থাকতো। কিন্তু বর্তমানে চূড়ান্ত আন্দোলনের বছরেই ঝিমিয়ে পরে গর্ত থেকে বেড়িয়ে আসতে পারছেন না। ইতিমধ্যে ঈদের পর থেকে দলীয় কোন প্রোগ্রামেই অংশ নেয় না তারা। যা নিয়ে বর্তমানে রাজনৈতিক অঙ্গনে চলছে নানা আলোচনা সালোচনা।

 

নেতাকর্মীদের ভাষ্য অনুযায়ী জানা গেছে, মহানগর বিএনপির মূল কমিটিকে বিলুপ্ত করছে নানাভাবে নানা পায়তারা করেছেন এই বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা যার পরিপ্রেক্ষিতে দেখা গেছে, পাল্টা কমিটি গঠন, পাল্টা বক্তব্যে ও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কাছে গিয়ে কমিটির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কথা বলা সহ নানা তোরজোর চালিয়েছেন কিন্তু সব বিষয়ে ব্যর্থ হয়ে এবার নিজেরাই সক্রিয় থেকে নিষ্ক্রিয় হয়ে পরলো। যার প্রেক্ষিতে নেতাকর্মীরা জানতে চায়, কবে গর্ত থেকে বেড় হবে মহানগর বিএনপির বিদ্রোহী নেতাকর্মীরা।

 

দলীয় সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ১৩ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপিরকে বিগত দিন থেকে আরো শক্তিশালী করার লক্ষে ৪১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতৃবন্দরা। যার পরিপ্রেক্ষিতে দলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি লক্ষে ১৫ জন নেতাকর্মী কমিটি থেকে বেড়িয়ে মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি আবুল কালামের চাচাতো ভাই হিসেবে পরিচিত মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আতাউর রহমান মুকুলের নেতৃত্বে রাজপথে আলাদাভাবে কর্মসূচি পালন করা শুরু করে। আর মূল কমিটির সাথে পাল্টাপাল্টি সকল কিছু করা শুরু করে যেমন, কর্মসূচি, কমিটি, বক্তব্য ইত্যাদি।

 

কিন্তু এমন করতে করতে হঠাৎ হারিয়ে গেছে বিদ্রোহী নেতৃবৃন্দরা। জানা গেছে, কমিটির পর এখন পর্যন্ত ৬/৭ টা কর্মসূচিতে নানা ইস্যু দেখিয়ে উপস্থিত ছিলেন না তারা। গতকাল ও কেন্দ্রীয় বিএনপি ১০ দফা দাবি বাস্তবায়ন ও নানা বিষয় নিয়ে জন সমাবেশ করেছেন। এই জনসমাবেশে অনেকে অনেক বলয়ের সাথে যুক্ত সকলেই বিএনপির স্থায়ী কমিটির নেতৃবৃন্দ থাকার কারণে এখানে উপস্থিত হন। কিন্তু মির্জা আব্বাসকে কোন মূল্যায়ন না করেই অনুপস্থিত মহানগর বিএনপির বিদ্রোহীরা।

 

সেই ধারাবাহিকতায় ২৩ মে মহানগর বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচি দেয় কেন্দ্র এই কর্মসূচি ও পালন করতে দেখা যায়নি তাদের। আর মহানগর বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচিতে নানা বিশৃঙ্খলা হলেও সফলভাবে রাজপথে সাখাওয়াত ও টিপুর নেতৃত্বে মিছিল পরিচালনা হয়েছে। কিন্তু এদিকে দলের কথা অমান্য করে মহানগর বিএনপির বিদ্রোহীরা দফায় দফায় যে বিতর্কের সৃষ্টি দিয়ে যাচ্ছে। যা নিয়ে বর্তমানে আলাপ আলোচনা চলছে বিভিন্ন নেতাকর্মীদের মুখে মুখে।

 

তৃণমূল নেতাকর্মীরা বলছে, বর্তমানে মুকুলের সাথে মিলে হয়তো ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের সাথে গর্তে বসে আতাঁত করে চলছে। তা না হলে কিভাবে দলের দুঃসময়ে তারা দলের কার্যক্রমে পিছিয়ে কেন। সব মিলিয়ে বিদ্রোহীতায় ব্যর্থ হয়েছে মুকুল গ্রুপ তাই নেতাকর্মীদের দাবি, যদি বিরোধী দল বিএনপির সাথে রাজনীতি করতে হয় তাহলে মহানগর বিএনপির মূল কমিটির সাথে একত্রিত হয়ে রাজপথের শক্তি বাড়ালে রাজপথে বিএনপির ভূমিকা থাকবে দেখার মতো। এছাড়া ও মহানগর বিএনপির পদযাত্রায় দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সকল নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হতে বলেছে।এস.এ/জেসি

এই বিভাগের আরো খবর